আশ্রয়কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফিরছে মানুষ

0
20

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে রাতভড় ঝড়ো হাওয়া ও গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির পর সকালে বরিশালের আবহাওয়া পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে। আকাশ পরিষ্কার থাকায় আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠা কেটে স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে জনজীবন। পাশাপাশি সকাল থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা স্বাভাবিক হচ্ছে।

ফসলি ক্ষেতের ক্ষয়ক্ষতির হিসাব না পাওয়া গেলেও বেশকিছু এলাকায় গাছপালা উপরে পড়া এবং কাঁচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া, বেড়িবাঁধ ভেঙে পানি প্রবেশ করে নদীর তীরবর্তী বেশকিছু বসতি এলাকা ও কৃষিজমি প্লাবিত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

অপরদিকে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়ে বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন এলাকায় চাষিদের মাছের ঘের ও পুকুর তলিয়ে গেছে। পানির চাপে অনেকের ঘেরের সীমানা ভেঙে প্লাবিত হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন চাষিরা।

বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার বাসিন্দা রুবেল হাওলাদার জানান, অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে তাদের মাছের ঘেরে প্রথম পার্শ্ববর্তী খালের পানি প্রবেশ করে। এরপর পানির চাপে ঘেরের সীমানা বা পাড় ভেঙে যায়। এতে ঘেরের সব মাছ বের হয়ে যায়।

এদিকে নদ-নদীর পানিও সকাল থেকে কমতে শুরু করেছে। বরিশাল জেলা প্রশাসনের মিডিয়া সেল সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে বরিশালের কীর্তনখোলা, বুড়িশ্বর, ধর্মগঞ্চ ও নয়াভাঙ্গুলি নদীর পানি বিপৎসীমার নিচে প্রবাহিত হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here