কুয়াকাটায় ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে গঙ্গা স্নান সম্পন্ন

0
14
Exif_JPEG_420

আব্দুল আলিম খান, পটুয়াখালী

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য এবং নিরবিচ্ছন্ন নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে কুয়াকাটায় গঙ্গা স্নান সম্পন্ন হয়েছে। দেশে বিভিন্ন স্থান থেকে আসা সনাতন ধর্মালবলম্বী নর-নারী র্নিঘুম রাত কাটানোর পর পুর্ণিমা তীথিতে পুন্যের আশায় সূর্য ওঠার সাথে সাথে বঙ্গোসাগরের নীল জলে পুন্যস্নান শেষ করেছেন। সৈকতে মোমবাতি ও আগরবাতি জ¦ালিয়ে বেল পাতা, ফুল, ধান, দূর্বা, হরিতকী, ডাব, কলা, তেল, সিঁদুর সমুদ্রের নীল জলে অর্পন করেন সহস্রাধিক সনাতনী নারীরা। এসময় উলুধ্বনি ও মন্ত্রপাঠে পুরো সৈকতে বিরাজ করে এক মুখর পরিবেশ। এছাড়া মাথা ন্যাড়াসহ প্রায়শ্চিত্ত ও পিন্ডদান করেন অনেক মানতকারিরা। এবছর করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাবে বসেনি মেলা। তবুও আগত পুর্ন্যাথী দর্শনার্থীসহ ধর্ম-বর্ন নির্বিশেষে সকল মানুষের উপস্থিতিতে এ উৎসব রূপ নেয় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সেতু বন্ধনে। এদের নিরাপত্তায় সৈকতে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের কারনে এ বছর পুন্যার্থী ও দর্শনার্থীদের ভীড় ছিল কম। ফলে হোটেল মোটেলগুলোতে তেমন কোন চাপ ছিল না। আগত দর্শনার্থী ও পুন্যার্থীর জন্য নিরাপদ পানি, মেডিকেল টিম, স্যানিটেশনসহ স্নান শেষে পোশাক পরিবর্তনের ব্যবস্থা করেছেন আয়োজক কমিটি। এছাড়া আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে স্থানীয় প্রশাসনসহ র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা, আনসার, স্বেচ্ছাসেবক একত্রে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেছেন। পঞ্জিকা মতে রোববার দুপুর ১টা ৫৪ মিনিটে পুর্ণিমাতিথী শুরু হয়েছে। তা থাকবে আজ সোমবার বিকেল তিনটা পর্যন্ত। কুয়াকাটায় পুন্যস্নান শেষে পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পৌর শহরের মদনমোহন সেবাশ্রমে ৫ দিনব্যাপী শ্রী শ্রী কৃষ্ণের রাস উৎসবে মিলিত হবে দূর-দূরান্ত থেকে পুন্যার্থী, দর্শনার্থী ও সাধু সন্ন্যাসীরা।

গঙ্গা স্নানে আশা কল্পনা রানী বলেন, মন্দিরে রাতভর নানা ধর্মীয় অনুষ্ঠান উপলব্ধি করে সকালে গঙ্গা স্নান করেছি। স্নান শেষে তারা নিজ গন্তব্যে ফিরবেন। করোনার কারণে এবছর তেমন কোন লোকজন আসেনি বলে তিনি জানিয়েছেন।

গোপাল চন্দ্র শীল বলেন, আমার ছেলে মানদ ছিল। তাই কুয়াকাটায় এসেছি। সকালে পুর্ণিমা তিথিতে সৈকতে বসে মাথা ন্যাড়া করেছি। এরপর গঙ্গা স্নান শেষে বাড়িতে ফিরে যাবো।
কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাবু অনন্ত মুখার্জী জানান, রাতভর শ্রী কৃষ্ণের নাম যজ্ঞ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বছর করোনা ভাইরাসের কারনে ধর্মীয় অনুষ্ঠান স্বান্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে করা হয়েছে।

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here