কুয়াকাটা পৌর নির্বাচন আ’লীগে সরব হাইব্রীড নেতা, বিএনপি নিরব

0
22

রিমন সিকদার, কলাপাড়া

২৮ ডিসেম্বরর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছ কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচন। আর ওই নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা এখন নিজ নিজ দলের সমর্থন পেতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে।
কে কোন দলের মনোনয়ন পাবেন, ভোটারদের এমন আলোচনায় সরব হয়ে উঠছে পৌর এলাকায়। তবে শেষ পর্যন্ত আ’লীগ, বিএনপি, জাপা (এ) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র দলীয় মনোনয়ন কারা পাচ্ছেন সেটি দেখার অপেক্ষায় কুয়াকাটা পৌরবাসীর। সবকিছু মিলিয়ে সমুদ্রপাড়ের এ জনপদের পৌর নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবের আমেজ বইছে সর্বত্র। ক্ষমতাসীন দলের একাধিক মেয়র প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে থাকলেও বিএনপি, জাপা’র প্রার্থীতা নিয়ে মুখ খুলছেননা কেউ। এমনকি ক্ষমতাসীন দলের একাধিক মেয়র, কাউন্সিলর প্রার্থীর ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টারে সমগ্র কুয়াকাটা সয়লাব হলেও বিএনপি, জাপা ও ইসলামী আন্দোলন’র কোন প্রচারনার পোষ্টার চোখে পড়েনি এ পর্যন্ত।

বিএনপি’র দলীয় সূত্র জানা গেছে, বিএনপি একক প্রার্থী নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নামবেন তারা। তবে নৌকার মনোনয়ন পেলেই বিজয় সুনিশ্চিত, এমন ধারণা থেকে সরকারে থাকা আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা মাঠে রয়েছেন। ফলে দলীয় মনোনয়ন পেতে মরিয়া সেইসব নেতারা কাঁদা ছোড়াছুড়িসহ পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন। অন্যদিকে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি এবারের কুয়াকাটা পৌর নির্বাচনে কৌশলী হয়ে মাঠে কাজ করবে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ থেকে হাফডজন নেতা দলীয় মনোনয়ন পেতে তদবির চালাচ্ছেন। তারা হলেন ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি আ: বারেক মোল্লা, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদুর আলম টিটো, কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি গাজী মো. ইউসুফ, সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর মোঃ শাহ আলম হাওলাদার এবং অপর সাংগঠনিক সম্পাদক অনন্ত মূখার্জী মাঠে রয়েছেন। ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী ও নেতাকর্মীদের মধ্যে নির্বাচনকে সামনে রেখে দ্বিধাবিভক্তি শুরু হয়েছে। একই সাথে বিগত পৌর নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হতে মাঠে থেকে মনোনয়ন বঞ্চিত পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মনির আহম্মেদ ভূঁইয়া এবারও শেষ পর্যন্ত দলের মনোনয়ন চাইতে পারেন। এছাড়া ইসলামী আন্দোলন’র একক প্রার্থী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে হাজী নুরুল ইসলাম হাওলাদারের। তিনি বিগত পৌর নির্বাচনেও পাখা প্রতীকে নির্বাচনী মাঠে ছিলেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে থাকতে পারেন জাতীয় পার্টি থেকে সদ্য আওয়ামী লীগে যোগ দেয়া হাইব্রীড নেতা মো: আনোয়ার হাওলাদার। তিনি স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর সাথে ভোট যুদ্ধে অবতীর্ণ হবেন বলে তার অনুসারীদের অভিমত। আনোয়ার হাওলাদার গত নির্বাচনে জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল। গত নির্বাচনে অংশ নেয়া পৌর বিএনপির আহবায়ক আ: আজিজ মুসুল্লী এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন কিনা সেটি এখনও স্পষ্ট নয়।

কুয়াকাটা পৌরসভা সুত্রে জানা গেছে, কুয়াকাটা পৌরসভার যাত্রা শুরু হয় ১৫ডিসেম্বর ২০১০সালে। ৯টি ওর্য়াড নিয়ে গঠিত পৌরসভার আয়তন ১২.৭৫ বর্গ কিলোমিটার। গ্রাম রয়েছে ২৫টি। বর্তমান জনসংখ্যা ৫০১২৭.০০জন। মোট ভোটার সংখ্যা ১২ হাজার। ২০১১ সালে ৩৪ নং লতাচাপলী মৌজার ১১৪০দশমিক ৫৫একর জায়গা নিয়ে পৌরসভাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর থেকেই পৌরসভার কার্যক্রম চলে আসছিল নির্বাচিত মেয়র দিয়ে।

কলাপাড়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব হুমায়ুন সিকদার বলেন, বিএনপিতে প্রার্থী সংকট নেই। একক প্রার্থী দিয়ে নির্বাচনী মাঠে আছে।

কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালেব তালুকদার বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দল এবং কুয়াকাটার উন্নয়নে কাজ করছে বর্তমান সরকার। তাই আ’লীগ মনোনিত প্রার্থীকেই ভোট দেবেন জনগন, ।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার আবদুর রশিদ বলেন, কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। দু’একদিনের মধ্যেই কুয়াকাটা পৌরনির্বাচনের তফসিল ঘোষনা হতে করা হয়েছে। ২৮ ডিসেম্বরর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছ কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচন। মনোনয়নপত্র জমা ১ ডিসেম্বর, বাছাই ৩ ডিসেম্বর, প্রত্যাহারের ১০ ডিসেম্বর।

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here