চরফ্যাশনের বেতুয়া লঞ্চঘাটে অতিরিক্ত টোল আদায়, যাত্রীদের হয়রানীর অভিযোগ

0
6

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

ভোলা চরফ্যাশনের বেতুয়া লঞ্চঘাটের ইজারাদারের বিরুদ্ধে ঘাট টিকেটের নামে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। যাত্রী টিকেটের পাশাপাশি মালামাল ওঠা-নামায় ২/৩ গুণ বেশি টাকা আদায় নিত্য ঘটনা হয়ে দাড়িয়েছে। ঘাট টোলের নামে অধিক মূল্য আদায়ের এই ঘটনা নিয়ে প্রতিদিন যাত্রীরা ঘাটের স্টাফ ও কুলি মজুরদের হাতে নাজেহাল হচ্ছেন। ইজারাদারের রাজনৈতিক ক্ষমতাকে ব্যবহার করে সাধারণ যাত্রীদের জিম্মি করে এমন অপকর্ম দিনের পর দিন চলে আসছে বলে যাত্রীদের অভিযোগ।

জানা গেছে, চরফ্যাশনের লেতরা, ঘোষেরহাট এবং বেতুয়াঘাট থেকে প্রতিদিন ঢাকা-চরফ্যাশন নৌরুটে কমপক্ষে এক ডজন যাত্রীবাহি লঞ্চ চলাচল করছে। এর মধ্যে কেবল বেতুয়াঘাট থেকে প্রতিদিন ৬টি লঞ্চ ঢাকা-চরফ্যাশন আসা-যাওয়া করছে। এ ঘাট দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার যাত্রী ও মালামাল পরিবহন হচ্ছে। বেতুয়া ঘাট ইজারাদার অভ্যন্তরীন নৌ বন্দর কর্তৃপক্ষের নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে যাত্রী প্রতি ১০টাকা করে ঘাট টিকেটের নামে টোল এবং যাত্রীদের মালামাল উঠাতেও ২০ টাকার স্থলে ২শ টাকা ভাড়া আদায় করছে। ইজারাদার নুরে আলম মাষ্টারের নির্দেশে বাড়তি এই টিকেটের হার নির্ধারণ করা হয়েছে বলছেন ঘাট সংশ্লিষ্টরা।

আবদুল্লাহপুর গ্রামের কামাল হোসেন অভিযোগ করেন, দেশের সব লঞ্চঘাটে যাত্রী উঠতে ৫ টাকা ঘাট টিকেট দিতে হয়। ব্যতিক্রম কেবল চরফ্যাশনের বেতুয়াঘাটে। এখানে যাত্রী প্রতি ১০টাকা করে ঘাট টিকেট দিতে হয়। প্রতিবাদ করতে গেলে ইজারাদারের লোকজনের হাতে নাজেহাল হতে হচ্ছে লঞ্চ যাত্রীদের।

লঞ্চ ষ্টাফরা অভিযোগ করেন, পল্টুনের লঞ্চ ভেড়াতে গেলে ইজারাদারকে আগে ৫শ টাকা দেয়া হতো বর্তমান সময়ে ইজারাদার নুরে আলম মাষ্টারের লোকরা জোরপুর্বক লঞ্চ প্রতি আরও এক হাজার টাকা আদায় করছেন। প্রতিবাদ করতে গেলে লঞ্চ পল্টুনে ভিড়তে দিবে না বলে হুমকি দেয়।

অভিযোগ প্রসঙ্গে বেতুয়া লঞ্চঘাটের ইজারাদার মো. নুরে আলম  জানান, করোনাকালে যাত্রী কম থাকায় যাত্রী প্রতি ঘাট টিকেট ১০ টাকা করে আদায় করা হয়েছে। সারাদেশের সব ঘাটের সাথে তালমিলিয়ে এটা করা হয়েছে।

যাত্রীদের অভিযোগ ও ইজারাদারের বক্তব্য প্রসঙ্গে অভ্যন্তরীন নৌ-বন্দর ভোলার সহকারি পরিচালক কামরুজ্জামান জানান, যাত্রী প্রতি ৫ টাকা করে ঘাট টিকেট নির্ধারন করা আছে। বেশি নেয়ার সুযোগ নেই। যাদের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার সুষ্পষ্ট অভিযোগ পাওয়া যাবে, তদন্ত সাপেক্ষে সেসব ইজারাদারের ইজারা বাতিল করা হবে।

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here