চরফ্যাসনে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা করিমের নেতৃত্বে জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ

0
109

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

ভোলা চরফ্যাসনের এওয়াজপুর ইউনিয়নের মিনাবাজার সংলগ্ন এলাকায় প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা মো. ছাদেকুর রহমান সিকদারের জমি প্রতিপক্ষ একটি ভুমিদস্যু চক্রকে ব্যবহার করে জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এওয়াজপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে।গত শুক্রবার বিকালে একই ইউনিয়নের আনা মিয়ার ছেলে নুরুল ইসলাম ও দ্বীন ইসলামগংদেরসহ কয়েকজন নারীকে ব্যবহার করে ওই জমি দখলের চেষ্টা চালান। এসময়ে বাজারের ব্যবসায়ী ও প্রতিপক্ষের তোপের মুখে জমি জবর দখলে ব্যর্থ হন। এঘটনায় প্রকৃত জমির মালিক প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা এওয়াজপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও সিনিয়র সহসভাপতি বর্তমান শশীভুষণ থানা আওয়ামীলীগের সদস্য ছাদেকুর রহমানকে জব্দ করতে রাজিয়া নামের এক কতিথ নারীকে বাদী করে গত শনিবার দুইজনসহ অজ্ঞাত ২০ জনকে আসামী করে শশীভূষণ থানায় মারধরের অভিযোগ তুলে মিথ্যা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
গতকাল মঙ্গলবার জমির মালিক ছাদেকুর রহমান অভিযোগ করেন, এওয়াজপুর মৌজায় দিয়ারা ৫৮ নং খতিয়ানে ৪ একর ১৮ শতাংশ জমির বন্ধোবস্ত সুত্রে মুল মলিক ছিলেন বাবা আলি আকবর শিকদার। তার মৃত্যুর পর ৪ ছেলে ৪ মেয়ে ওই জমির ওয়ারিশ হিসেবে মালিক হন। এবং ৬৫ বছর যাবত বসত বাড়ি ,ঘর উত্তোলন করে ভোগ দখলে আছেন। সম্প্রতি সময়ে একই ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের মৃত আনা মিয়ার ছেলে এবং মেয়েরা ওই জমি বন্ধোবস্ত নিয়েছেন বলে এওয়াজপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিমের কাছে অভিযোগ দেন। ওই নেতা আমার দখলীয় জমি ছেড়ে দিতে হুমকি দিয়ে আসছিলেন। ছেড়ে দিতে হুমকি দেন।
গত শুক্রবার এওয়াজপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিমের নেতৃত্বে ট্রাক ভর্তি ঘর উত্তোলনের মালামাল নিয়ে আমার দখলীয় জমিতে ঘর উত্তোলনের চেষ্টা চালান। স্থানীয়দের তোপের মুখে জমি দখলে ব্যর্থ হন। আমরা বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানালে জবর দখল কারীদেরকে সমযোতার আস্বাসে ট্রাক ভর্তি মালামাল সহ দখলের চেস্টাকারীরা চলে যায়।জমি দখলে ব্যর্থ হয়ে রেজাউল করিমের ইন্দনে প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলাম গংরা আমাকে জব্দ করতে হয়রানী মুলক ভাবে শশীভূষণ থানায় আমাকেসহ দুজনকে ও অজ্ঞাত ২০ জনকে আসামী করে শশীভূষণ থানায় মিথ্যা মারধরের অভিযোগ তুলে লিখিত অভিযোগ দেন।
স্থানীয়রা জানান, এই আওয়ামীলীগ নেতা রেজাউল করিম ইতি পুর্বে একই ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের প্রতিপক্ষের সাথে আর্থিক লেনদেনে প্রভাবিত হয়ে আলী হোসেন মুনসির বসত ঘর ভাংচুর করে উচ্ছেদ করেছেন।এনিয়ে একাধিক জাতীয় দৈনিকে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিলো।
অভিযুক্ত নুরুল ইসলাম ও রাজিয়া বেগম জানান, ওই মৌজায় আমাদের বন্ধোবস্ত নেয়া জমি রয়েছে। তবে জমি পরিমাপের কারনে জমিটি চিহ্নিত করতে পারিনি।
ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম জানান, বিষয়টি তার জানা নেই। এ ব্যাপারে সে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।
শশীভূষণ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি অভিযোগটি তদন্তানাধীন রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here