চরফ্যাসনে রাতের আধাঁরে পাকা সড়ক কেটে দেয়ার অভিযোগ

0
119

কে হাসান সাজু, চরফ্যাসন

ভোলার চরফ্যাসনের শশীভূষণ থানার এওয়াজপুর ইউনিয়নে রাতের আধাঁরে এলজিইডির নির্মনাধীন সরকারী পাকা সড়ক কেটে ড্রেন নির্মানের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় আবুল কালাম মাঝি ও ছোটন, আকতার গংদের বিরুদ্ধে।বৃহস্পতিবার গভীর রাতে এওয়াজপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের পশ্চিম এওয়াজপুর গ্রামের কালা মিয়ার মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় এঘটনা ঘটে। পাকা সড়ক কেটে দেয়ার ফলে ভোগান্তিতে পরার আশংকা ওই গ্রামের প্রায় ৫ হাজার মানুষের। এনিয়ে গ্রাম জুড়ে ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।
স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে এলজিইডির কর্মকর্তারা গতকাল শুক্রবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি বলে স্থানীয়রা বাসিন্ধারা অভিযোগ করেছেন।
জানাযায়, আবদুল মতিন কাজী দীর্ঘ ৬ বছর যাবত ওই এলাকায় কৃষি অফিসের অনুমোদিত ড্রেন দিয়ে ইরির সেচ প্রদান করেন আসছেন। সম্প্রতি সময়ে স্থানীয় কালাম মাঝি, আকতার, ছোটনগংরা মতিন কাজীকে ইরি সেচ থেকে উৎখাতের চেষ্টা করেন। এনিয়ে দুপক্ষের মধ্যে মামলা মোকদ্দমা চলমান আছে। আবুল কালাম মাঝি গংরা মতিন কাজীর ইরি বøকের সেচ কাজে বাঁধাগ্রস্ত করতে রাতে আধাঁরে মতিন কাজীর ইরি বøকের সংলগ্ন স্থানে পাকা সড়ক কেটে পাইপ বসিয়ে ড্রেন নির্মান কাজ করেন।
স্থানীয় ইউপি সদস্য জোবায়ের স¦পন জানান, অনুমতি ছাড়া পাকা সড়ক কাটার কারো কোন বৈধতা নাই। আবুল কালাম মাঝি এলজিইডির অনুমতি ছাড়াই রাতের আধাঁরে ৫ হাজার গ্রামবাসী একমাত্র চলাচলের এই পাকা সড়কটি কেটে ড্রেন নির্মানের ফলে ভোগান্তিতে পরেছে এলাকার মানুষ।
অভিযুক্ত আবুল কালাম মাঝি জানান, ইরি বøকে পানি সেচ দেয়ার জন্যই সড়কটি কাটা হয়েছে। পানি সেচ শেষে মেরামত করে দেয়া হবে।
এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী মো. মোশারেফ হোসেন জানান, স্থানীয়দের খবররের ভিত্তিতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সত্যতা পাওয়া গেছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here