দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৭ হাজার ছাড়াল

0
1

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

নভেল করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৭ হাজার ছাড়াল। গেল ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হয়ে আরো ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৭ হাজার ২০-এ। সরকারি হিসাবে, এর আগে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর সাড়ে সাত মাসের মাথায় গত ৪ নভেম্বর মৃতের সংখ্যা ৬ হাজার ছাড়ায়। এরপর ৩৭ দিনে মৃতের সংখ্যা আরো এক হাজার বাড়ল।

এদিকে ২৪ ঘণ্টায় আরো আরও নতুন করে ১ হাজার ৩২৯ জনের শরীরে ভাইরাসটির সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৪ লাখ ৮৯ হাজার ১৭৮-এ।

আজ শনিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানার স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরটি পিসিআর, জিন এক্সপার্ট ও র‌্যাপিড এন্টিজেন মিলিয়ে মোট ১৪০টি পরীক্ষাগারের তথ্য উল্লেখ করে জানানো হয়, এ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১২ হাজার ৬৫টি। আগের কিছু নমুনাসহ পরীক্ষা করা হয়েছে ১২ হাজার ৬৩০টি।

আজ সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৫২ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত এসব নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে মোট সংক্রমণ শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ১৬ দশমিক ৫৪ শতাংশে। অন্যদিকে এ পর্যন্ত মোট সংক্রমণ শনাক্তের বিপরীতে সুস্থতার হার দাঁড়িয়েছে ৮৫ দশমিক ৩৫ শতাংশ, আর শনাক্ত বিপরীতে মৃতের হার দাঁড়িয়েছে ১ দশমিক ৪৪ শতাংশ।

২৪ ঘণ্টায় মৃত ৩৪ জনের মধ্যে পুরুষ ২৩ জন এবং নারী ১১ জন। এদের মধ্যে ৩২ জনই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন, অন্যদুজন বাড়িতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এ ৩৪ জনের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন ২৪ জন। এছাড়া ৫১-৬০ বছর বয়সসীমার মধ্যে নয়জন এবং ৩১-৪০ বছর বয়সসীমার মধ্যে রয়েছেন একজন।

২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে যথারীতি ঢাকা বিভাগের বাসিন্দার সংখ্যাই বেশি। এ বিভাগের ২৪ জন মারা গেছেন। বাকিদের মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগের রয়েছেন চারজন, সিলেট ও রংপুরের দুজন করে এবং বরিশাল ও ময়মনসিংহের একজন করে মারা গেছেন।

এ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন আরো ৩ হাজার ১৮৫ জন রোগী। এর মধ্য দিয়ে দেশে করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীর মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ১৭ হাজার ৫০৩-এ।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রথম শনাক্ত হয়। গত ১১ মার্চ নভেল করোনাভাইরাসকে বৈশ্বিক মহামারী ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। বাংলাদেশে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। ২ জুলাই ৪ হাজার ১৯ জন কভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়, যা একদিনের সর্বোচ্চ শনাক্ত। আর দেশে প্রথম শনাক্তের ১০ দিন পর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ৩০ জুন একদিনেই ৬৪ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়, যা একদিনের সর্বোচ্চ মৃত্যু।

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here