বাকেরগঞ্জে ভিডিও ধারণ ও ছবি তুললে সাংবাদিকদের ক্যামেরা ও মোবাইল ভাঙচুর!

0
24

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

বরিশালের বাকেরগঞ্জে অর্ধ-শতাধিক মাঠ কর্মীকে জড়ো করে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে মিটিং করেছেন উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা দিলীপ কুমার দাস। এ সময় দিলীপ কুমার দাস দুটি টিভি চ্যানেলের ক্যামেরা ও একজন সাংবাদিকদের মোবাইল ফোন ভেঙে ফেলেন।

৪ মে  সোমবার সকাল ১০ টা থেকে সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত তার এ মিটিং করার খবর পেয়ে উপজেলার কর্মরত সাংবাদিকরা তার অফিসে মিটিংয়ের ভিডিও ধারণ ও ছবি তুলতে তাদেরকে অশ্লীল গালাগাল ও হুমকি প্রদান করেন। তিনি এশিয়ান টিভি ও সিএনএন বাংলা টিভির ক্যামেরা এবং দৈনিক বিজয় পত্রিকার রিপোর্টারের মোবাইল ফোন ভেঙে ফেলেন। সাংবাদিকরা তার মিটিং করার ভিডিও ধারণ ও ছবি তুলতে গেলে তিনি সাংবাদিকদের দিকে তেড়ে এসে তাদেরকে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করে তার  মিটিং কক্ষের দরজায় জোরে টাক দিয়ে  আটকে রাখেন। সাথে সাথে বিষয়টি বরিশাল জেলা প্রশাসক এস এম অজিয়র রহমান, জেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জসিম উদ্দিন মুকুল ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধবী রায়কে জানানো হয়েছে। উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা দিলীপ কুমার দাসের এ আচরণের প্রতিবাদে তাৎক্ষনিক ক্ষোভে ফেটে পরেন স্থানীয় সাংবাদিকরা।

জেলা প্রশাসক এস এম অজিয়র রহমান বলেন, করোনা ভাইরাসের এই দুর্যোগের সময় লোকজড়ো করে মিটিং করা যাবে না। করোনা প্রতিরোধে অফিসিয়াল সকল কাজে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। জেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জসিম উদ্দিন মুকুল বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের এই সময়ে মাঠ কর্মীদের নিয়ে মিটিং করার কোন যৌক্তিক কারন দেখছি না। দিলীপ দাস যদি সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে মাঠ কর্মীদের নিয়ে মিটিং করেন সে বিষয়ে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধবী রায় বলেন, অফিশিয়াল কোন কাজ থাকলে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। সাংবাদিকদের সাথে কোন অসদাচরণ করলে তিনি ভুল করেছেন। সেক্ষেত্রে পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা দিলীপ কুমার দাস যদি আইনের কোন ব্যত্যয় ঘটান তদন্তে করে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here