ঘূর্ণিঝড় আম্ফান মোকাবিলায় এম.পি জ্যাকবের যোগাযোগ ও নির্দেশনা প্রদান

0
159

কে হাসান সাজু, চরফ্যাশন

করোনা ভাইরাসের এই মহাদুর্যোগের সময়ে আবার আরেকটি ঘূর্ণিঝড় “আম্পান” ধেয়ে আসছে আমাদের দিকে। আগামী কয়েক ঘন্টার মধ্যে আঘাত হানতে পারে ভোলার চরফ্যাস, মনপুরাসহ উপকূলীয় অঞ্চলগুলোতে। বর্তমানে আমাদের ভোলা জেলাকে মহাবিপদ বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। তাই এখনই প্রস্তুতি নিয়ে সর্বোচ্চ মনোযোগ দিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নির্দেশ দিয়েছেন ভোলা ৪ এর মাননীয় সাংসদ, যুব ও ক্রীরা মন্রনালয়ের সংসদীয় কমিটির সভাপতি জনাব আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব। যাতে আমাদের সবচেয়ে কম ক্ষতির শিকার হতে হয়। ঘূর্ণিঝড়ে চরফ্যাসনে সার্বিক প্রস্ততি সম্পর্কে জানিয়েছেন জনান মোকাম্মেল হোসেন সহকারী পরিচালক (সিপিপি) চরফ্যাসন ভোল। তিনি বলেন চরফ্যাসনের মাননীয় সাংসদ ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের খোঁজ খবর ও করনীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত দিচ্ছেন। প্রস্তুতি হিসেবে নিম্নোক্ত বিষয়েগুলো কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলেন। ১। যেহেতু করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা জরুরী তাই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ঘূর্ণিঝড় শেল্টারে/স্কুল/কলেজে আশ্রয়গ্রহণের ক্ষেত্রে পরস্পর পরিচিত সুস্থ মানুষকে একসাথে রাখা হবে। অসুস্থদের ভিন্ন জায়গায় রাখা হবে। কেউ দয়া করে নিজের অসুস্থতার কথা লুকাবেন না। ২।যেহেতু অনেককে আলাদা আলাদা রাখতে হতে পারে সেহেতু উপজেলার যে সকল বিদ্যালয়ে সাইক্লোন শেল্টার (ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র) আছে বা যে সকল বিদ্যালয় তুলনামূলকভাবে বড়/ সুযোগসুবিধা বেশি সে সকল বিদ্যালয়ের চাবি নিকটবর্তী শিক্ষক বা অফিস সহায়কদের কাছে রেখে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য এবং ইউপি চেয়ারম্যানদের অবগত করার জন্য বলা হয়েছে। আজই সকল প্রতিষ্ঠান প্রধানগণকে এই নির্দেশটি অবহিত করতে উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে অনুরোধ করা হলো। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষক/কর্মচারীকে তাদের ফোন নাম্বার সব সময় খোলা রাখতে হবে এবং দুর্যোগ সংশ্লিষ্ট যেকোন কাজ করার জন্য সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে। ৩।সম্পদ সংশ্লিষ্ট বিভাগ যথা কৃষি, প্রাণিসম্পদ, ফিশারি বিভাগকে তাদের বিভাগ সংশ্লিষ্ট সম্পদ যাতে বিনষ্ট না হয় সে ব্যাপারে ব্যপক প্রচার ও ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করা হলো। পাকা ধান কেটে ফেলা, গবাদি প্রাণি নিরাপদে রাখা, জেলে সমিতি/মৎস্যজীবীদের সতর্কবার্তা পৌঁছে দেয়া ইত্যাদি । ৪।ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার, মহিলা মেম্বার, ইউপি সচিব, গ্রাম পুলিশকে নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে থাকতে হবে। ইউপি চেয়ারম্যানগণকে তার নিজ নিজ ইউনিয়নে কর্মরত দুর্যোগ সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে জরুরী সভা করে ঘূর্ণিঝড়ের বিষয়ে কাল সকাল হতে প্রচার চালাতে হবে। জনগণের কোন কোন অংশকে কোন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উঠাতে হবে সে সম্পর্কে পরিকল্পনা পূর্বেই চিন্তা করে রাখতে নির্দেশ প্রদান করা হলো। ৫।প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে দুর্যোগপ্রবণ ইউনিয়ন এর সার্বিক বিষয়গুলো মনিটরিং করে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের সাথে সমন্বয় করতঃ দূর্যোগ মোকাবেলায় সকল প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হলো। ৬।উপজেলা বন কর্মকর্তাকে করাতিদের সাথে যোগাযোগ করে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের সাথে সমন্বয় করে দ্রুত ঝড়ে পড়া গাছ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) কাটার প্রস্তুতি নিতে অনুরোধ করা হলো। তাকে নিজে বা ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় সংখ্যক করাত/ ইলেকট্রিক করাত সংগ্রহ করতে অনুরোধ করা হলো। ৭।উপজেলা স্বাস্থ্য ও প প কর্মকর্তাকে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের জন্য মেডিকেল টিম গঠনের অনুরোধ করা হলো। জরুরী ঔষধ সংগ্রহে রাখতে অনুরোধ করা হলো। ৮।উপজেলা জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে সাইক্লোন শেল্টার বা শেল্টার হিসেবে ব্যবহৃত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে খাবার পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার প্রস্তুতি রাখতে অনুরোধ করা হলো। ০৯।উপজেলার সরকারী সকল কর্মকর্তা/কর্মচারীগণকে এই দুর্যোগকালীন সময়ে কর্মস্থলে অবস্থান করতে অনুরোধ করা হলো। ১০।সর্বোপরি দুর্যোগ মোকাবেলায় সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতঃ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করতে হবে। এছাড়াও দলের সকল নেতা কর্মীদের ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাসে, জনগণের পাশে থাকতে নির্দেশ দিয়েছেন

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here