তীব্র গরম, লালমোহনে কদর বাড়ছে তাল পাখার

0
16

সাব্বির আলম বাবু, লালমোহন

সারা দেশের মত ভোলার লালমোহনেও গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী তালপাখা এ তীব্র গরমে শেষ ভরসা। ঘণ ঘণ লোডশেডিং, গরমের তীব্রতা ও অনাবৃষ্টির ফলে উপজেলার জনগণের মাঝে ঠান্ডার শিতল পরশ দিতে একমাত্র তাল পাখা বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। এ তালপাতার সঙ্গে জড়িয়ে আছে গ্রাম বাংলার আবহমান কালের ঐতিহ্য। এক সময় বাংলার ধনী গরিব নির্বিশেষে সবার ঘরে ঘরে স্থান পেত তালের পাখা। কিন্তু কালের বির্বতনে তালগাছ বিলুপ্তির সাথে সাথে তালপাখার প্রসারও কমতে শুরু করে। তাছাড়া আধুনিক যন্ত্রপাতি যেমন- ফ্যান, এয়ারকন্ডিশনও এর অন্যতম কারণ। তারপরেও তালপাখার কদর কিন্তু এখনো রয়েছে বাংলার জনপদে। তালপাখা বিক্রেতারা এ গরমে বাহারি ডিজাইনের তালপাখা নিয়ে শহর ও গ্রামের ঘরে ঘরে বিক্রি করে। প্রকার ভেদে তালপাখা ১৫ থেকে ৩০ টাকা পর্যšত বিক্রি হয়। উপজেলার চরল²ী গ্রামের কুটির শিল্পি গৃহবধূ সালেহা বেগম বলেন, আগে গরমের সময় আসলে তাল পাখা তৈরির জন্য অগ্রিম অর্ডার পেতাম। সংসারের বাড়তি আয়ও হতো। কিন্তু বর্তমানে আধুনিক যন্ত্রপাতির কারণে সে রকম চাহিদা মতো ক্রেতা পাইনা। বালুর চর গ্রামের কুটির শিল্পি কাশেম বলেন, তালপাখা তৈরিতে যে পাতা বা তাল গাছের প্রয়োজন তা এখন আর নেই। তাই কাঁচামালের উপাদান সংকট আছে। এছাড়া সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান যদি এব্যাপারে আর্থিক সহযোগিতার জন্য এগিয়ে আসে তা হলে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যর প্রতিক তাল পাখা টিকে থাকবে বাঙালিদের মাঝে শান্তির ঠান্ডা বাতাসের পরশ দিয়ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here