বিএম কলেজের সাবেক ভিপি মঈন তুষারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা

0
15

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

বরিশাল সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজের সাবেক ভিপি ও ছাত্রলীগ নেতা মঈন তুষারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা হয়েছে। জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রাজিব হোসেন খান বাদী হয়ে সোমবার সকালে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলাটি করেন। এতে আরও বেশ কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামির তালিকায় রাখা হয়েছে। মঈন তুষার প্রয়াত মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা শওকত হোসেন হিরণ অনুসারী এবং বাদী নগরীর মো. ঈশ্বরবসু রোডের আবুল হোসেন খানের ছেলে ও বর্তমান সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ’র কর্মী। তবে মঈন তুষার দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতির মাঠের বাইরে আছেন, সময় দিচ্ছেন নিজের ব্যবসায়।

পুলিশ এজাহারের বরাত দিয়ে জানায়, বরিশাল জেলা ছাত্রলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিবসহ সংগঠনের অপর তিন নেতা সহ-সভাপতি আতিকউল্লাহ মুনিম, রইছ আহমেদ মান্না এবং সাজ্জাত সেরনিয়াবাতের ছবি ব্যবহার করে ‘বরিশাল উইথ এ মিশন’ (Barisal with a Mission) নামক একটি পেইজ কু-রুচিপুর্ণ তথ্য শেয়ারের পাশাপাশি একটি বিকৃত ভিডিও পোস্ট করে। এবং সেখানে উল্লেখ করে এরা ‘শেরেবাংলার বংশধর’, বরিশাল নির্মাণে এই চোরদের সহযোগিতা করুন। ভিডিওটির শেষাংশে একটি কুকুরের ছবি জুড়ে দেওয়া হয়। এছাড়া এই পেইজটি থেকে তাদের নিয়ে আরও একাধিক পোস্ট দিয়ে নৈতিবাচক নানার কথা তুলে ধরে।

ছাত্রলীগ নেতা রাজিব জানান, সাবেক ভিডিও মঈন তুষার বিনা অনুমতিতে তাদের ছবি ব্যবহার করে এবং ‘বরিশাল উইথ এ মিশন’ নামক ওই পেইজটিতে ব্যঙ্গাত্মক রুপ দিয়ে নানান কু-রুচিপুর্ণ লেখাসহ পোস্ট করেন। যা পরবর্তীতে মঈন তুষারের ‘বাংলাদেশ বাণী’ পত্রিকার ফেসবুক পেইজে চলে আসে।

এই ছাত্রলীগ নেতার অভিযোগ, সাবেক ভিপি মঈন তুষার দলীয় প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক ঘরনার নেতাকর্মীদের ইজ্জতহরণে ছদ্মবেশ ধারণ করে ফেসবুকে অপপ্রচার চালিয়ে আসছেন। এই ঘটনায় বিচার প্রাপ্তির আশায় তিনি বাদী হয়ে সোমবার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫(২)/২৬ (২)২৯ (১) ধারায় মামলাটি করেন।

তবে দলীয় ঘরনার প্রতিপক্ষ রাজনৈতিকদের বিরুদ্ধে ফেসবুকে কোন প্রকার অপপ্রচার চালানোর কথা অস্বীকার করেছেন মঈন তুষার। এই ছাত্রলীগ নেতার দাবি, বিরোধীমতের রাজনৈতিক হিসেবে তাকে শায়েস্তা করতে প্রতিপক্ষ নানান ষড়যন্ত্র কষছে। যার অংশ হিসেবে ছাত্রলীগ নেতা রাজিবের এই মামলাটি।’

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here