বোরহানউদ্দিনে দেবর কতৃক ভাবিকে কু প্রস্তাব‘ রাজি না হওয়ায় পিটিয়ে আহত।

0
49

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার বড় মানিকা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের কবিরাজ বাড়ির কবিরের স্ত্রী সোনিয়াকে তার দুই দেবর কতৃক কু প্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে এবং কু প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে। রবিবার সকালে বোরহানউদ্দিন হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় এসব অভিযোগ করেন আহত সোনিয়া। তার স্বামীর ছোট দুই ভাই গিয়াস উদ্দিন (২০) ও সোহেল (১৮) এর বিরুদ্ধে তিনি এসব অভিযোগ করেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, দির্ঘ ৪ বছর আগে আমার বিবাহ হয়। বিবাহের পর থেকে আমার দুই দেবর আমাকে কু প্রস্তাব দিয়ে বিভিন্ন টাকা ও বিভিন্ন শাড়ি কাপড়ের প্রলোভন দেখায়। আমি বিষয়টি আমার স্বামীকে জানাই। বিষয়টি নিয়ে একাধিক বার শালিশ বৈঠক হয়েছে। এবং আমাকে কু প্রস্তাবের ঘটনায় আমার স্বামী প্রতিবাদও করেছে। এবং আমাকে গত শনিবার রাতে আমার দেবর গিয়াস উদ্দিন প্রথমে আমাকে খারাপ প্রস্তাব দেয় কিছুক্ষন পরে সেহেল ও আমাকে খারাপ প্রস্তাব দেয়। আমি তাদের খারাপ প্রস্তাবে রাজি না হয়ে আমার স্বামী ও শশুর-শাশুড়ীকে জানাই। পরে আমার দুই দেবর ক্ষিপ্ত হয়ে রবিবার সকালে আমাকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। আমার স্বামী আহত অবস্থায় আমাকে উদ্ধার করে বোরহানউদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করে। আমাকে কু প্রস্তাবের কথা আমার স্বামীকে বলায় আমার শশুর মোজাম্মেল ও আমার শাশুড়ী খায়রুন বেগমও আমাকে মারধোর করে। সোনিয়ার স্বামী কবির বলেন. আমার দুই ভাই আমার স্ত্রীকে বিভিন্ন সময় টাকা ও শাড়ি কাপড়ের লোভ দেখিয়ে খারাপ কাজ করার জন্য প্রস্তাব দিত। এই ঘটনা নিয়ে আমাদের বাড়িতে একাধিক বার শালিশ বৈঠক হয়েছে। সেখানে তাদের একাধিকবার সতর্ক করা হয়েছে। তারা কারো কোন কথা শোনেনি। তামার দুই ভাই আমার স্ত্রীকে আবার খারাপ প্রস্তাব দেয়। আমার স্ত্রী আমাকে এবং আমার বাবা মাকে বলে দেওয়ায় রবিবার সকালে আমার স্ত্রীকে আমার দুই ভাই পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এব্যাপারে হামলাকারী গিয়াসউদ্দিন ও সোহেলের কাছে জনতে চাইলে তাদেরকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here