মনপুরায় আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থানরত লোকজনের মাঝে শুকনো খাবার বিতরন করছেন ইউএনও

0
21

মোঃ ছালাহউদ্দিন, মনপুরা

ভোলা মনপুরা উপজেলা প্রশাসনের ব্যাপক প্রচারনায় ও জনসচেতনতায় ঘূর্ণীঝড় আম্ফান আসার পুর্বেই আশ্রয় কেন্দ্রে উঠতে শুরু করেছে বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চলসহ বেড়ীবাধের বাহিরে বসবাসরত লোকজন। উপজেলা প্রশাসন ও সিপিপি যৌথ প্রচারনায় বেড়ীবাধের বাহিরে বসবাসরত পুরুষ মহিলা,শিশু,বৃদ্ধসহ লোকজন ঘূর্ণীঝড়ে প্রস্তুত রাখা আশ্রয় কেন্দ্রে উঠে অবস্থান করতে দেখা গেছে।
মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১ টায় আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ঘুরে দেখা গেছে, ভোলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ১নং মনপুরা ইউনিয়নের অস্থায়ী পরিষদ ভবনে আশ্রয়কেন্দ্রে বিচ্ছিন্ন কলাতলীর চর থেকে আসা ১২০ জন রয়েছে।

রাতে আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা আন্দিরপাড় গ্রামের বাসিন্দা রহিজল,কারিতাসের আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা শফিক বলেন,আমাগোরে ভলেনডিয়ারা আশ্রয়কেন্দ্র নিয়া আইছে, টিএনও স্যাররা আইয়া শুকনো খাবার দিছে। আমাগো খোজ খবর নিছে। আশ্রয় কেন্দ্রে থাকনের ব্যাবস্থা করছে। আমরা ভালো আছি। এদিকে কারিতাসের অপর আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা শহীদ বলেন, নদীতে ঝড়-তুফান বইছে, চেয়ারম্যান-মেম্বারে আমাগোরে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়া আইছে, ইউএন স্যার ও উপজেলা চেয়ারম্যান শুকনো খাবার দিছে। তা খাইয়া পরিবার-পরিজন নিয়া রাত যাপন করছি আশ্রয় কেন্দ্রে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ভোলার বিচ্ছিন্ন উপজেলা মনপুরা দ্বীপের প্রশাসন মঙ্গলবার রাতে বেড়ীবাঁধহীন কলাতলী চর ও মূল ভূ-খন্ডের বেড়ীর বাহিরে থাকা ৭২৯ জনকে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসে। এর মধ্যে দক্ষিণ সাকুচিয়া কারামতিয় মাদ্রাসায় স্কুল কাম সাইক্লোন সেন্টারে ৭৯ জন, মনপুরায় আন্দির পাড় স্কুল ভবনে ২১০ জন, মনপুরা আশ্রয়কেন্দ্র কাম ইউপি ভবনে ১২০ জন, হাজিরহাট চরফৈজুদ্দিন ১২০ জন, উত্তর সাকুচিয়া বাংলা বাজার স্কুল ভবনে ১০০ ও কারতিাস সাইক্লোন সেন্টারে ১০০ জন আশ্রয় নিয়েছে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১ টায় ঝড় বৃষ্টি উপক্ষো করে শুকনো খাবার পৌঁছে দেন উপজেলা প্রশাসন। শুকনো খাবারের মধ্যে মুড়ি ও চিনি দেওয়া হয়। এছাড়াও আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা মানুষজনকে মাক্স ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব মেনে থাকতে বলা হয়। এদিকে মঙ্গলবার রাত ১২ টার পর সিপিপি’র পক্ষ থেকে রাতভর জনসাধারনকে সর্তক করতে মাইকিং করতে দেখা গেছে।

আশ্রয়কেন্দ্রে খাবার বিতরনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও আ’লীগের সভাপতি শেলিনা আকতার চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাস, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব মোঃ ইলিয়াস মিয়া, উপজেলা সিপিপি’র টিম লিডার এরফান উল্লাহ চৌধুরী অনি ও মনপুরা ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান টিটু ভূঁইয়া।

এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাস জানান, আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা ৭২৯ জনকে রাতে শুকনো খাবার পৌঁছানো হয়েছে। বুধাবর সকালে বিচ্ছিন্ন কলাতলী চর থেকে আরো দুই ট্রলার লোক আশ্রয়কেন্দ্রে আনা হবে। এছাড়া আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা সবাই মাক্স সহ সাবান দিয়ে হাত ধুতে বলা হয়েছে। মনপুরায় চুয়াত্তরটি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রয়েছে। আমি সার্বক্ষনিক খোজ খবর নিচ্ছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here