1. admin@dipkanthonews24.com : admin :
ভোলায় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে নিখোঁজ যুবকের রক্তমাখা লাশ উদ্ধার - দ্বীপকন্ঠ নিউজ ২৪
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ভাগ্যেন্নয়নে কাজ করছেন-এমপি শাওন লালমোহনে ইলিশের অভয়াশ্রম এলাকায় জনসচেতনতা সভা বোরহানউদ্দিন হাসপাতাল দালালদের খপ্পরে, প্রতারিত সাধারন রোগীরা ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক সন্ত্রাস উগ্রবাদ নিরসন প্রশিক্ষণ কর্মশালা বাউফলে সেতু আছে রাস্তা নেই ভোলার আলোচিত মাদক কারবারি বিয়ারসহ আটক মনপুরা কলাতলী ইউপি নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় চেয়ারম্যান পদে আলাউদ্দিন হাওলাদার নির্বাচিত আজিজিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা পদক ও সাংস্কৃতিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত এমপি শাওনকে লালমোহন পৌরসভার পক্ষ থেকে নাগরিক সংবর্ধনা চরফ্যাশনে পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করায় শিক্ষকসহ ১৭ পরীক্ষার্থী বহিষ্কার

ভোলায় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে নিখোঁজ যুবকের রক্তমাখা লাশ উদ্ধার

ইব্রাহিম আকতার আকাশ
  • প্রকাশিত : রবিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২২
  • ১৩৩ বার পঠিত
Spread the love

ইব্রাহিম আকতার আকাশ

ভোলার দৌলতখান উপজেলায় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে মেঘনা নদীতে পড়ে নিখোঁজ হওয়া যুবক নোমানের রক্তমাখা লাশ ৪ দিন পর ঘটনাস্থলে ভেসে উঠেছে। স্বজনরা তাঁর লাশ শনাক্ত করেছে। লাশের মুখমণ্ডল থেঁতলানো এবং নাক ফাটা। মুখমণ্ডল জুড়ে রক্ত জমাট বেঁধে লাল হয়ে গেছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর কার্যক্রম চালাচ্ছে।
আজ রবিবার (২৭ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে তাঁর ভাসমান লাশ দেখতে পান দৌলতখান থানার ডিউটি অফিসার (এসআই) আবু হানিফ লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। পরিবার নোমানের লাশ শনাক্ত করেছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
এদিকে নোমানের লাশ উদ্ধারের খবরে তাঁর আত্নীয়স্বজন ও স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে ভিড় জমিয়েছেন। তাঁরা নোমানের লাশ একনজর দেখার চেষ্টা করছেন। স্বজনদের আহাজারিতে ঘটনাস্থলে শোকের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। আহাজারির কন্ঠে স্বজনরা এ ঘটনায় জড়িত পুলিশ সদস্যদের কঠিন বিচারের দাবি জানাচ্ছেন।
নোমান নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় শুক্রবার রাতে লালমোহন সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জহুরুল ইসলামকে প্রধান করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন, জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ডিবি) মো. এনায়েত হোসেন ও ভোলা সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন সেলের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহিরুল ইসলাম কামরুল।
তবে কতদিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে তা নিশ্চিত করতেন পারেননি কমিটিতে থাকা কেউই। কমিটির প্রধান জানান, এ বিষয়ে শনিবার রাত ১০টা পর্যন্ত তিনি কোনো কাগজপত্র হাতে পাননি।
নোমান নিখোঁজের ঘটনায় গতকাল শনিবার সকালে তাঁর পরিবার দৌলতখান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।
নিখোঁজের পর থেকে এ ঘটনায় ওসির গাড়ি চালক কনস্টেবল মো. রাসেল ও সজীব নামে দুই পুলিশ কনস্টেবলকে বরখাস্ত করে ভোলা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। দৌলতখান থানা থেকে প্রত্যাহার করে ভোলা পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়েছে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) স্বরূপ কান্তি পাল ও সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মো. সোহেল রানাকে।
তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর ঘটনার বিস্তারিত জানা যাবে। প্রতিবেদনের আলোকে বরখাস্ত হওয়া কনস্টেবল ও ক্লোজড হওয়া পুলিশ কর্মকর্তারারা বিভাগীয় শাস্তির আওতায় আসবে।
ঘটনার ১ দিন পর নোমানের স্বজনরা মেঘনা নদীতে ট্রলার যোগে নোমানের লাশ খোঁজে পেতে মাইকিংও করেছেন।
প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার ২৪ নভেম্বর দুপুর ১টার দিকে দৌলতখান উপজেলার পাতার খাল মাছ ঘাট সংলগ্ন মেঘনা নদীর তীরবর্তী এলাকায় নোমানসহ বেশ কয়েকজন জুয়া খেলছিল। এসময় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অবগত না করেই বরখাস্ত হওয়া পুলিশ সদস্য ও ক্লোজড হওয়া পুলিশ কর্মকর্তারা নোমানদের জুয়ার আসরে গিয়ে তাদেরকে ধাওয়া করে। পুলিশের ধাওয়া খেয়ে মেঘনা নদীতে নোমানসহ আরো কয়েকজন পড়ে যায়। তাদের মধ্যে সবাই সাঁতরে তীরে উঠে আসতে পারলেও নোমান উঠে আসতে পারেনি। এরপরই নিখোঁজ হয় নোমান। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, নোমান নদীতে পড়ে যাওয়ার পর পুলিশ তাকে উদ্ধার না করে উপর থেকে তাকে লক্ষ্য করে ইট নিক্ষেপ করতে থাকে। তাদের ধারণা পুলিশের ইটের আঘাতে নোমান নদী থেকে সাঁতরে তীরে উঠে আসতে পারেনি।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো পড়ুন
error: Content is protected !!